সোনারগাঁয়ে হেফাজতে নেতাকর্মীদের তাণ্ডব, মামুনুল হকের বিরুদ্ধে মামলা

নারায়ণগঞ্জের কন্ঠ: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায় রয়েল রিসোর্টে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করার ঘটনায় উওপ্ত হয়ে হেফাজতকর্মীদের সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ দুই নেতার বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও রয়্যাল রিসোর্ট ভাংচুরের ঘটনায় তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বুধবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে সোনারগাঁ থানায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা বাদী হয়ে দুটি ও হেফাজত নেতাকর্মীদের হামলায় আহত সাংবাদিক হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে একটিসহ তিনটি মামলা দায়ের করেন।

সোনারগাঁ থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান মামলার দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ৩ মামলার মধ্যে পুলিশের এক মামলায় হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে প্রধান আসামী করা হয়েছে। এ ঘটনায় এজহারভুক্ত একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার নাম মোস্তফা। তাকে ৭দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ করেছে।


জানা যায়, সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে গত শনিবার সোনারগাঁয়ে বেড়াতে এসে রয়েল রিসোর্টে অবস্থান নেয়। এ খবরে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মামুনুল হককে আটক করে অবরুদ্ধ করে তার সাথে খারাপ আচরণের অভিযোগ উঠে। এ ঘটনাটি ফেসবুকে ভাইরাল হলে সন্ধ্যায় হেফাজতের কয়েকশ’ কর্মী-সমর্থকরা রয়েল রিসোর্টে হামলা ও ভাংচুর করে মামুনুল হককে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়। পরে রাতে মোগরাপাড়া চৌরাস্তা জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মহিউদ্দিন খান ও মাওলানা ইকবালের নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে নেমে আসে। মামুনুল হককে হেনস্তা করার প্রতিবাদে তারা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। তাদের ইট-পাটকেল নিক্ষেপে পথচারী ও সংবাদকর্মীসহ ১৫ জন আহত হন। সড়কে টায়ার ফেলে তাতে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করে। ভাংচুর চালানো হয়েছে যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম নান্নুর রেস্তোরাঁ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়সহ আরও কয়েকটি দোকানে।


এ ঘটনায় বুধবার দুপুরে পুলিশের কাজে বাধা, হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) ইয়াউর রহমান বাদি হয়ে মামুনুল হককে প্রধান আসামী করে ৪১ জনের নাম উল্লেখ করে ও সন্ত্রাস বিরোধী আইনে আরিফ হাওলাদার বাদী হয়ে ৪২ জনের নাম উল্লেখ করে আরো একটি মামলা দায়ের করেন। এছাড়া ৫ শতাধিক অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে।


এদিকে শনিবার মাওলানা মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করার ঘটনার তথ্য সংগ্রহ করতে যাওয়া স্থানীয় সাংবাদিক হাবিবুর রহমানকে মামুনুল হকের দাড়ি ধরে টান দেওয়ার অভিযোগ তুলে সনমান্দি ইউনিয়নের ভাটিরচর গ্রামে সাংবাদিকের উপর হামলা ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনায় ১৭ জনকে নাম উল্লেখসহ ৭০-৮০জনকে আসামী করা হয়।


সোনারগাঁ থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান বলেন, হেফাজতের তান্ডবের ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় তিনটি মামলা গ্রহণ করা হয়েছে। এ মামলায় কয়েক’শ জনকে আসামী করা হয়েছে। সিসিটিভির ফুটেজ দেখে আসামী শনাক্ত করে নাম ঠিকানা অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এ ঘটনায় এজহারভুক্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আপডেট

0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x